চুল পড়া বন্ধ করার ১২টি ঘরোয়া উপায়

চুল হলো আমাদের সৌন্দর্য। কিন্তু দুঃখের বিষয় আজকের দিনে চুল পড়া এক মারাত্মক সমস্যায় পরিণত হয়েছে। একবার চুল পড়া শুরু হলে চুল পড়া যেন আর থামতেই চায় না। কিন্তু কিছু ঘরোয়া উপায় অবলম্বন করে আমরা সহজেই চুল পড়া বন্ধ করতে পারি। আজকের আর্টিকেলে আমি চুল পড়া বন্ধ করার ১২ টি ঘরোয়া এবং সহজ উপায় বর্ণনা করব৷ আশা করি, এতে আপনার উপকার হবে।

চুল পড়া বন্ধ করার উপায় 

১. আপনার চুল প্রতিদিন ধৌত করুন

 

সামান্য হালকা শ্যাম্পু দিয়ে প্রতিদিন চুল ধৌত করুম। এতে আপনার মাথার ত্বক পরিষ্কার থাকবে, যেকোনো ধরনের সংক্রমণ প্রতিরোধ করবে এবং আপনার চুলকে একটু বেশি উজ্জ্বল রাখবে। নিয়মিত চুল ধোয়াকে চুল পড়া রোধের অন্যতম সহজ ঘরোয়া প্রতিকার হিসেবে বিশেষজ্ঞরা বিবেচনা করে থাকেন। বিশেষ করে প্রতিদিন কাজ শেষ করে ঘরে ফিরে সামান্য একটু শ্যাম্পু ব্যবহার করে আপনার চুল ধুয়ে ফেলুন। 

 

২. ভেজা চুলে চিরুনি করবেন না

 

আমরা যে  ভুলটি সবথেকে বেশি করি যা আমাদের মাথার চুল পড়ার জন্য দায়ী তা হলো  গোসল থেকে বেরিয়ে আসার সাথে সাথে আমাদের চুল আঁচড়ানো। যদিও আপনি সময় বাঁচানোর জন্য এটি করছেন, তবে এটি আপনার চুলের উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। এই কাজের পরিবর্তে, একটি তোয়ালে দিয়ে আপনার চুল শুকিয়ে নিন এবং তারপরে একটি চওড়া দাঁতযুক্ত চিরুনি দিয়ে আপনার চুল আঁচড়ান। এতে করে আপনার মাথার চুলের গোড়া নরম হবে না। 

 

৩. প্রচুর পানি পান করুন

 

ডিহাইড্রেশন (পানিশূন্যতা) আপনার শরীরকে মারাত্মকভাবে প্রভাবিত করে এবং আপনার চুলের স্বাস্থ্যের উপরও প্রভাব ফেলে। আপনি নিয়মিত হাইড্রেটেড থাকার এবং প্রতিদিন কমপক্ষে ৬-৮ গ্লাস জল পান করে এটি এড়াতে পারেন।

 

এছাড়াও, আপনি স্বাস্থ্যকর ফলের রসও পান করতে পারেন যা বাড়িতে সহজেই তৈরি করা যায়। এটি শুধুমাত্র আপনার মাথার ত্বককে সুস্থ রাখে না, এটি চুল পড়ার সবচেয়ে সহজ ঘরোয়া প্রতিকার হিসেবেও কাজ করে। তাই চুল পড়া প্রতিরোধ করতে আজ থেকেই পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করার অভ্যাস করুন।

 

৪. নিয়মিত চুলে তেল দিয়ে মালিশ করুন

 

নিয়মিত চুল ধোয়ার মতো, নিয়মিত চুলে তেল দিয়ে মালিশ চুল পড়া প্রতিরোধ করতে অত্যন্ত কার্যকর পদক্ষেপ। নিয়মিত চুলে তেল দিলে চুল মজবুত হয়।  চুল পড়া কমে এবং পুনরায় চুল গজায়। নিয়মিত তেল দেয়া হলো সবচেয়ে কার্যকর ঘরোয়া প্রতিকারগুলির মধ্যে একটি। চুলে তেল দেওয়ার সুবিধার পাশাপাশি, আপনার চুলের তেলের দিকেও নজর দিতে হবে যা আপনার চুলের ধরণের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত। 

 

৫. ধূমপান এবং অ্যালকোহল গ্রহণ থেকে বিরত থাকুন

 

যারা নিয়মিত ধূমপান করেন এবং মদ্যপান করেন, তাদের মাথার ত্বকে রক্ত ​​প্রবাহ কমে যাওয়ার কারণে অস্বাভাবিক হারে চুল পড়ে যেতে পারে।

 

সুতরাং, আপনার অ্যালকোহল গ্রহণ হ্রাস করা চুল পড়ার অন্যতম সেরা প্রতিকার হতে পারে এবং এটি স্বাস্থ্যকর চুলের বৃদ্ধিকেও সহযোগিতা  করতে পারে। 

 

৬. মানসিক চাপ নেওয়া থেকে বিরত থাকুন

 

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গেছে যে আপনার স্ট্রেস লেভেল আপনার চুলের স্বাস্থ্যের উপর বিশাল প্রভাব ফেলতে পারে। মানসিক চাপের কারণে প্রধান সমস্যাগুলির মধ্যে একটি হল চুল পেকে যাওয়া।

 

অতএব, কঠিন সময়ে আপনার মানসিক স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়া পরোক্ষভাবে চুল পড়ার সেরা প্রতিকারগুলির মধ্যে একটি হয়ে উঠতে পারে যা আপনি চেষ্টা করেন। আপনি ধ্যান, যোগব্যায়াম এবং অন্যান্য ক্রিয়াকলাপ অনুশীলন করে এটিতে কাজ করতে পারেন যা আপনাকে শারীরিক এবং মানসিকভাবে সুস্থ রাখবে। এতে আপনার মাথার চুল পড়া রোধের পাশাপাশি আপনি অন্যান্য জটিল রোগ থেকেও মুক্তি পাবেন। 

 

৭. শারীরিক পরিশ্রম করুন

 

আজকাল আমরা শারীরিক পরিশ্রম করা প্রায় ছেড়েই দিয়েছি। আপনার দৈনন্দিন রুটিনে বিভিন্ন শারীরিক ক্রিয়াকলাপ অন্তর্ভুক্ত করা চুল পড়া এবং পুনরায় গজানোর অন্যতম সহজ ঘরোয়া প্রতিকার। আগেই উল্লেখ করা হয়েছে, যোগব্যায়াম সক্রিয় থাকার একটি কার্যকর উপায় কারণ কিছু যোগাসন রয়েছে যা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতেও সাহায্য করে।

 

এছাড়াও, নিয়মিত মর্নিং ওয়াক, জগিং বা বিভিন্ন আউটডোর অ্যাক্টিভিটি আপনাকে ব্যস্ত ও সুস্থ রাখবে। সুতরাং, এই ধরনের শারীরিক ক্রিয়াকলাপে নিযুক্ত হওয়া চুল পড়ার অন্যতম সেরা ঘরোয়া প্রতিকার হিসাবে কাজ করতে পারে। এছাড়া শারীরিক পরিশ্রম আপনাকে মানসিক ভাবেও সুস্থ রাখবে। 

 

৮. পুষ্টিকর খাবার খান

 

আপনার চুল পড়ার অন্যতম প্রধান কারণ হতে পারে কিছু অস্বাস্থ্যকর খাদ্যাভ্যাস। যে খাদ্যে সঠিক পরিমাণে ভিটামিন এবং প্রোটিন থাকে না তা অবশ্যই আপনার চুলের স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করবে।

 

সুতরাং, স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ করা চুল পড়া রোধের অন্যতম সহজ প্রতিকার এবং এটি রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো এবং সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াই করার অন্যতম সেরা উপায়। তাই পুষ্টিকর খাবার গ্রহণ করুন। 

 

৯. মেথি ব্যবহার করুন

 

মেথি বা মেথি বীজ তাদের প্রোটিন উপাদানের জন্য পরিচিত এবং কার্যকর চুল পড়ার প্রতিকার হিসাবে বিবেচিত হয়। এগুলি আপনার চুলের গোড়া মজবুত করে, ক্ষতিগ্রস্থ চুল মেরামত করে এবং চুল পড়া এবং পুনরায় বৃদ্ধির জন্য সবচেয়ে সহায়ক ঘরোয়া প্রতিকারগুলির মধ্যে একটি হিসেবে বিবেচিত হয়।

 

মেথি কিভাবে ব্যবহার করতে হবে:

 

প্রথমে কয়েকটি মেথি দানা নিয়ে সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রাখুন পরে, এটি একটি পেস্টে পিষে আপনার চুল এবং মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন। ৩৫- ৪০ মিনিটের জন্য রেখে দিন এবং তারপর স্বাভাবিক পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

আপনি সপ্তাহে অন্তত দুবার মেথি এভাবে ব্যবহার করতে পারেন। 

 

১০. নারকেলের পানি এবং দুধ একত্রে মিশিয়ে  ব্যবহার করুন

 

নারকেলের পানি এবং দুধে প্রয়োজনীয় পুষ্টি এবং ভিটামিন রয়েছে, তাই এটি চুল পড়া এবং পুনরায় গজানোর জন্য সবচেয়ে কার্যকর ঘরোয়া প্রতিকারগুলির মধ্যে একটি। আপনাকে যা করতে হবে তা হল এক কাপ নারকেল পানি এবং দুধ নিন এবং আপনার মাথার ত্বক এবং চুলে লাগান।

 

কিভাবে তৈরি করতে হবে:

 

এক কাপ নারকেলের পানি এবং দুধ একত্রে মিশিয়ে চুলে এবং মাথার ত্বকে ম্যাসাজ করুন।

এখন, আপনার মাথার চারপাশে একটি তোয়ালে জড়িয়ে রাখুন এবং এটি ২০-৩০ মিনিটের জন্য থাকতে দিন। এর পরে, কিছু শ্যাম্পু এবং ঠান্ডা পানি দিয়ে আপনার চুল ধুয়ে ফেলুন। আপনি সপ্তাহে একবার এটি করার চেষ্টা করতে পারেন।

 

১১. বিটরুট এর জুস

 

বিভিন্ন খনিজ এবং ভিটামিনের সাথে, বিটরুটের রসও চুল পড়ার অন্যতম উপকারী প্রতিকার। এটি আপনার চুলের গোড়া মজবুত করে এবং সেইসাথে আপনার চুলের সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে সাহায্য করে।

 

কিভাবে বানাতে এবং ব্যবহার করতে হবে:

 

কয়েকটি বিটরুট পাতা নিন এবং ২ কাপ জলে রাখুন। কিছুক্ষণ পানি ফুটিয়ে তারপর ঠান্ডা হতে দিন। এটি পিষে এবং একটি পেস্ট তৈরি করতে মেহেদি যোগ করুন। এখন, এটি আপনার মাথার ত্বকে লাগান এবং ১৫-২০ মিনিটের জন্য রেখে দিন। স্বাভাবিক পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

 

১২.  অ্যালোভেরা ব্যবহার করুন

 

অ্যালোভেরা চুল পড়া প্রতিরোধের আরেকটি কার্যকরী ঘরোয়া উপায়। চুলকানি এবং খুশকির মতো চুলের অন্যান্য সমস্যার চিকিৎসায়ও এটি ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। অ্যালোভেরার জুস  আপনাকে সুস্থ রাখে, এটি চুল পড়ার অন্যতম সেরা ঘরোয়া প্রতিকার হিসেবেও পরিচিত।

 

কিভাবে ব্যবহার করতে হবে:

 

একটি অ্যালোভেরার পাতা নিন এবং এর ভেতরের সজ্জা বের করুন। এটি আপনার চুলে ম্যাসাজ করুন এবং এটি প্রায় ৪৫ মিনিটের জন্য থাকতে দিন। স্বাভাবিক পানি দিয়ে ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন।

আপনি সপ্তাহে ২-৩ বার এটি ব্যবহার করতে পারেন।