পাইলস হলে করণীয় সম্বন্ধে আজই জানুন

পাইলস

পাইলস হলো এমন একটি রোগ যে রোগটি হলে মানুষের মলদ্বারের নলটিস্যু এবং শিরা সংগ্রহ ফুলে যায়। পাইলসের আকার বিভিন্ন রকম  হতে পারে এবং এগুলি মলদ্বারের ভিতরে বা বাইরে পাওয়া যায়। পাইলস হওয়ার জন্য নানা রকম কারণ দায়ী। দীর্ঘস্থায়ী ডায়রিয়া, দীর্ঘস্থায়ী কোষ্ঠকাঠিন্য, ভারী ওজন তোলা এবং গর্ভাবস্থার মধ্য দিয়ে  যাওয়ার সময় নানা রকম জটিলতা ইত্যাদি কারণগুলো মূলত পাইলসের জন্য দায়ী। পাইলসের লক্ষণ দেখা দিলে একজন ডাক্তার পরীক্ষার মাধ্যমে পাইলস নির্ণয় করতে পারেন খুব সহজেই । পাইলস বা হেমোরয়েডগুলিকে চিকিৎসা বিজ্ঞানে ১ থেকে ৪ পর্যন্ত গ্রেডে ভাগ করা হয়। ১ম ও ২য় গ্রেডের পাইলস এতটা মারাত্মক না হলেও তৃতীয় বা চতুর্থ গ্রেডের পাইলসের ক্ষেত্রে অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হতে পারে। পাইলস তথা  হেমোরয়েডস হলে  মলদ্বার খালে স্ফীত টিস্যু জমা হয়ে ফুলে যায়। পাইলসের মধ্যে রক্তনালী, সমর্থন টিস্যু, পেশী এবং ইলাস্টিক ফাইবার থাকে। অনেক সময় অনেকের পাইলস থাকলেও লক্ষণগুলি সুস্পষ্ট হয় না। 

 

পাইলস কি

মানুষের মলদ্বারে পাইলস হলে ফুলে যায় কারণ পায়ূ অঞ্চলে টিস্যুর অধিক সংশ্লেষ হয়। পাইলসের আকার বিভিন্ন রকম  হতে পারে এবং এগুলি অভ্যন্তরীণ বা বাহ্যিক হতে পারে। অভ্যন্তরীণ পাইলসগুলি সাধারণত মলদ্বারের  খালের উপরে ২ থেকে ৪ সেন্টিমিটার এর মধ্যে থাকে এবং এগুলি মোটামুটি  সাধারণ ধরণের। মলদ্বারের বাইরের প্রান্তে বাহ্যিক পাইলস দেখা দেয়। 

 

পাইলস কত প্রকার?

পাইলসকে চারটি গ্রেড অর্থাৎ শ্রেণিতে ভাগ করা হয়: 

 

প্রথম গ্রেড: এক্ষেত্রে আক্রান্ত ব্যক্তি তার মলদ্বারের আস্তরণের ভিতরে সাধারণত ছোট ছোট প্রদাহ অনুভব করে। পাইলস সাধারণত দৃশ্যমান হয় না।

 

 দ্বিতীয় গ্রেড: দ্বিতীয় গ্রেডের পাইলসগুলি প্রথম গ্রেডপাইলগুলির চেয়ে বড় হয় তবে এই পাইলসগুলি মলদ্বারের ভিতরেও থাকে। মল ত্যাগের সময় মলমবাধাপ্রাপ্ত হয়, মলত্যাগ করতে কষ্ট হয় এবং অনেক শক্তি প্রয়োগ করতে হয় আক্রান্ত ব্যক্তিকে। 

 

তৃতীয় গ্রেড: এগুলি বিস্তৃত অর্শ্বরোগ হিসাবেও পরিচিত এবং মলদ্বারের বাইরেও পাইলস দেখা যায়। ব্যক্তি তাদের মলদ্বার থেকে ঝুলন্ত কিছুর অনুভব করতে পারে।

 

চতুর্থ গ্রেড: এই পাইলসগুলি অত্যন্ত মারাত্বক। ভালো  চিকিৎসার প্রয়োজন হয়। এগুলি বড় এবং মলদ্বারের বাইরে থাকে।

 

পাইলসের লক্ষ্মণ 

 

বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, পাইলসের লক্ষণগুলি তেমন গুরুতর নয়। পাইলসের সাথে আক্রান্ত ব্যক্তি নিম্নলিখিত লক্ষণগুলি অনুভব করতে পারেন: মলদ্বারের চারপাশে একটি শক্ত, বেদনাদায়ক পিন্ড অনুভূত করতে পারে। এতে জমাট রক্ত ​​থাকতে পারে। যে পাইলসগুলিতে রক্ত ​​থাকে তাদের থ্রোম্বোজড বাহ্যিক হেমোরয়েডস বলা হয়। মল ত্যাগের করার পরে, পাইলস আক্রান্ত ব্যক্তি অনুভব করতে পারেন যে তার তলপেট এখনও পূর্ণ। উজ্জ্বল লাল রক্ত ​​মলত্যাগের পরে দেখা যায়। মলদ্বারের চারপাশের অঞ্চল চুলকানি, লাল এবং ঘা হয়। মল ত্যাগের সময় ব্যথা হয়। পাইলস আরও মারাত্মক অবস্থায় বাড়তে পারে। এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে: মলদ্বার দিয়ে রক্তপাত, মলত্যাগের সময় আক্রান্ত ব্যক্তি মলদ্বারকে নিয়ন্ত্রণ করতে অক্ষম হয়। এর ফলে মলদ্বারের সংশ্লিষ্ট ত্বকের পৃষ্ঠ এবং মলদ্বারের অভ্যন্তরের মধ্যে  রক্ত ​​সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়, ফলে সংক্রমণ বা রক্ত ​​জমাট বাঁধা সহ নানা জটিলতা সৃষ্টি হয়।

 

পাইলসের চিকিৎসা 

 

একটি চিকিৎসক পরীক্ষা করার পরে পাইলগুলি নির্ণয় করতে পারেন। ১ম ও ২য় গ্রেডের পাইলসের জন্য তেমন চিকিৎসার প্রয়োজন হয় না। কিছু বিষয় মেনে চললে ১ম ও ২য় গ্রেডের পাইলস ভালো হয়ে যায়। তবে ৩য় এবং চতুর্থ গ্রেডের পাইলসের ক্ষেত্রে অপারেশনের প্রয়োজন হয়। 

 

 খাদ্যাভাস : কোষ্ঠকাঠিন্যের ফলে পাইলস হয় বেশিরভাগ সময়। পাইলস হওয়ার পরও যদি কোষ্ঠকাঠিন্য থাকে তবে তো অবস্থা আরও বাজে দিকে পরিবর্তন হতে পারে। খাদ্যাভাসে যদি বেশি ফাইবারযুক্ত অর্থাৎ আঁশযুক্ত  খাদ্য থাকে তবে কোষ্ঠকাঠিন্য হয়। আঁশযুক্ত খাবারগুলো হলো কচুশাক, মিষ্টি আলুর শাক, কলমি শাক, পুদিনা পাতা, পুঁইশাক, মুলা শাক, ডাঁটা শাক, লাউ ও মিষ্টি কুমড়ার আগা-ডোগা, সাজনা, কলার মোচা, ঢেঁড়স, ডাঁটা, বাঁধাকপি, ফুলকপি, ওলকপি, গাজর, শিম, পটল, কচু, বেগুন, বরবটি,  মটরশুঁটি, আম, পাকা কাঠাল, কদবেল, মরিচ ইত্যাদি। পানি কম খাওয়া কোষ্ঠকাঠিন্যের অন্যতম কারণ। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী খাদ্যাভাসে পরিবর্তন আনতে হবে এবং বেশি করে পানি খেতে হবে। 

 

দেহের ওজন:  স্বাভাবিক ওজন পাইলসের প্রকোপ এবং তীব্রতা হ্রাস করতে ব্যাপক কার্যকরী। পাইলস প্রতিরোধের জন্য  চিকিৎসকরা সহজে মলত্যাগ করার জন্য বিশেষ রকম ব্যায়ামের অনুশীলন এবং মলত্যাগের সময় চাপ প্রয়োগ এড়ানোর পরামর্শ দেয়। ব্যায়াম করা পাইলসের অন্যতম প্রধান চিকিৎসা। 

 

ওভার-দ্য কাউন্টার (ওটিসি) ওষুধ: ওটিসি ওষুধ বলতে ডাক্তারের ব্যবস্থাপত্র ছাড়া ফার্মেসী থেকে ওষুধ কিনে ব্যবহার করা বোঝায়।  পাইলসের ওটিসি ওষুধগুলোর মধ্যে ব্যথানাশক, মলম, ক্রিম এবং প্যাড  অন্তর্ভুক্ত।  মলদ্বারের চারপাশে লালভাব এবং ফোলাভাব প্রশমিত করতে ব্যথানাশক, মলম, ক্রিম সাহায্য  করে। ওটিসি ওষুধগুলি পাইলস নিরাময় করে না। তবে যখন পাইলসের লক্ষণ দেখা দেয় তখন পাইলস নিরাময়ে  সহায়তা করতে পারে। একটানা ৭ দিন ব্যবহারের পরেও যদি ভালো না হয় তবে আর ব্যবহার করবেন না এই ওষুধ গুলি। কারণ এতে বিরূপ পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হতে পারে। এক্ষেত্রে পেশাদার চিকিৎসকের শরণাপন্ন হোন। ডাক্তারের পরামর্শ ব্যতীত  একই সময়ে দুটি বা ততোধিক ওষুধ ব্যবহার করবেন না। 

 

কর্টিকোস্টেরয়েডস: কর্টিকোস্টেরয়েডস হলো এক ধরনের ড্রাগ যা  প্রদাহ এবং ব্যথা হ্রাস করতে পারে। পাইলস আক্রান্ত কোনও ব্যক্তি যদি কোষ্ঠকাঠিন্যে ভুগেন তবে এই ড্রাগগুলি সেবন করলে ব্যক্তি আরও সহজে মল ত্যাগ করতে পারেন। এতে দেহের নিম্ন কোলনের ওপর চাপ কমে যায়।

 

ব্যান্ডিং: চিকিৎসক পাইলসের পিন্ডের গোড়ার চারদিকে একটি ইলাস্টিক ব্যান্ড বেধে রাখে এবং রক্ত ​​সরবরাহ বন্ধ করে দেয়। কিছুদিন পর পাইলস তথা হেমোরহয়েড পড়ে যায়। এটি চতুর্থ গ্রেডের চেয়ে কম পাইলসের চিকিৎসার জন্য কার্যকর। 

 

স্কেরোথেরাপি:  এক প্রকার মেডিসিন  ইনজেকশনের মাধ্যমে আক্রান্ত জায়গার রক্তনালীতে দেয়া হয়। ফলে পাইলসের রক্তনালীতে রক্তপ্রবাহ বন্ধ হয়ে যায়। ফলে পাইলস খুলে পড়ে যায়। কারণ রক্ত প্রবাহ বন্ধ হওয়ার কারণে চামড়া মরে যায়। এটি দ্বিতীয় গ্রেড এবং তৃতীয় গ্রেডের হেমোরয়েডগুলির জন্য কার্যকর এবং ব্যান্ডিংয়ের বিকল্প। 

 

ইনফ্রারেড জমাট বাঁধা: এক্ষেত্রে  একটি ডিভাইস পাইলসের  টিস্যু বার্ন করতে ব্যবহৃত হয়। এই কৌশলটি প্রথম এবং দ্বিতীয় গ্রেডের পাইলসের চিকিৎসার জন্য ব্যবহৃত হয়। 

 

হেমোরোয়েডেক্টমি: পাইলসের কারণে যখন অতিরিক্ত  রক্তপাতের কারণ হয় তখন তা সার্জিকাল ভাবে অপসারণ করতে  হয়। এটি বিভিন্ন উপায়ে করা যেতে পারে। পাইলস সম্পূর্ণরূপে অপসারণের জন্য এই ধরণের অস্ত্রোপচার সবচেয়ে কার্যকর, তবে মলত্যাগে  অসুবিধা ও  মূত্রনালীর সংক্রমণ সহ নানা জটিলতার ঝুঁকি রয়েছে। 

 

হেমোরহয়েড স্ট্যাপলিং: এক্ষেত্রে  রক্তের প্রবাহ পাইলসের মধ্যে সীমাবদ্ধ করে দেয়া হয়।

 

 দৃষ্টিভঙ্গি : যদিও তারা বেদনাদায়ক এবং দুর্বল হতে পারে, পাইলস সাধারণত স্বাস্থ্যের জন্য কোনও চলমান হুমকি সৃষ্টি করে না এবং তৃতীয় বা চতুর্থ গ্রেড পর্যন্ত স্ব-পরিচালিত হতে পারে। ফিস্টুলার মতো জটিলতা বিকাশ হলে এটি মারাত্মক আকার ধারণ করতে পারে। আরও উন্নত পাইলসের জন্য অস্ত্রোপচারের বিকল্পগুলি ন্যূনতম পুনরুদ্ধারের সময় সহ সাধারণত বহিরাগত রোগী পদ্ধতি।