নামাজে হাঁচি, কাশি দিলে নামাজ হবে?

Salat। Namaz। Quran। Hadis। Hadith। Allah। Islam। Muslim। Sunnah।Sariah।

                                                                                                      

 

بسم الله الرحمٰن الرحيم. حامدا و مصليا و مسلما

 

শরীয়তের বিধান মতে নামাজ ভেঙ্গে যাওয়ার অন্যতম একটি কারন হলো বিনা ওজরে কাশি দেওয়া। অপ্রয়োজনে কাশি দেওয়ার দ্বারা নামাজ ভেঙে যায়। (ফাতাওয়ায়ে শামী ৩/৬১৮, মারাকিল ফালাহ ১/১২১, আল বাহরুর রায়েক ২/৫)

 

আল্লাহ তাআলা বলেন-

 

قَدْ أَفْلَحَ الْمُؤْمِنُونَ . الَّذِينَ هُمْ فِي صَلاتِهِمْ خَاشِعُونَ

 

‘সেসব মুমিনরা সফলকাম, যারা তাদের নামাজে বিনয়াবনত থাকে।’ [সূরা মুমিনুন, আয়াত: ১-২]

 

★তবে ওযরবশত এমনটি হলে নামাজের কোনো সমস্যা হবেনা।   

 

হাদীস শরীফে এসেছেঃ 

 

وَحَدَّثَنَا هَارُونُ بْنُ عَبْدِ اللَّهِ، حَدَّثَنَا حَجَّاجُ بْنُ مُحَمَّدٍ، عَنِ ابْنِ جُرَيْجٍ، ح قَالَ وَحَدَّثَنِي مُحَمَّدُ بْنُ رَافِعٍ، – وَتَقَارَبَا فِي اللَّفْظِ – حَدَّثَنَا عَبْدُ الرَّزَّاقِ، أَخْبَرَنَا ابْنُ جُرَيْجٍ، قَالَ سَمِعْتُ مُحَمَّدَ بْنَ عَبَّادِ بْنِ جَعْفَرٍ، يَقُولُ أَخْبَرَنِي أَبُو سَلَمَةَ بْنُ سُفْيَانَ، وَعَبْدُ اللَّهِ بْنُ عَمْرِو بْنِ الْعَاصِ، وَعَبْدُ اللَّهِ بْنُ الْمُسَيَّبِ الْعَابِدِيُّ، عَنْ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ السَّائِبِ، قَالَ صَلَّى لَنَا النَّبِيُّ صلى الله عليه وسلم الصُّبْحَ بِمَكَّةَ فَاسْتَفْتَحَ سُورَةَ الْمُؤْمِنِينَ حَتَّى جَاءَ ذِكْرُ مُوسَى وَهَارُونَ أَوْ ذِكْرُ عِيسَى – مُحَمَّدُ بْنُ عَبَّادٍ يَشُكُّ أَوِ اخْتَلَفُوا عَلَيْهِ – أَخَذَتِ النَّبِيَّ صلى الله عليه وسلم سَعْلَةٌ فَرَكَعَ

 

হারূন ইবনু আবদুল্লাহ ও মুহাম্মাদ ইবনু রাফি’ (রহঃ) …. আবদুল্লাহ ইবনু সায়িব (রাযিঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাদেরকে নিয়ে মক্কায় ভোরের (ফজরের) সালাত আদায় করলেন। তিনি সূরাহ আল মু’মিনূন পড়া শুরু করলেন। তিনি তা পড়তে পড়তে মূসা ও হারূন (আঃ) অথবা ঈসা (আঃ)-এর আলোচনা সম্পর্কিত আয়াতে পৌছে গেলেন। (এ ব্যাপারে মুহাম্মাদ ইবনু আব্বাদ সন্দেহে পড়ে গেছেন অথবা রাবীদের মধ্যে মতভেদের সৃষ্টি হয়েছে)। এ সময় নাবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর কাশি আসলে তিনি রুকূ’তে চলে গেলেন।

READ MORE:  জিজিয়া কর : কারা, কেন, কিভাবে দিবেন?

(মুসলিম শরীফ ৯০৯,  (ইসলামিক ফাউন্ডেশনঃ ৯০৪, ইসলামিক সেন্টারঃ ৯১৬)

 

حَدَّثَنَا عُبَيْدُ اللَّهِ بْنُ مُعَاذٍ الْعَنْبَرِيُّ، حَدَّثَنَا أَبِي، حَدَّثَنَا كَهْمَسٌ، عَنْ يَزِيدَ بْنِ عَبْدِ اللَّهِ بْنِ الشِّخِّيرِ، عَنْ أَبِيهِ، قَالَ صَلَّيْتُ مَعَ رَسُولِ اللَّهِ صلى الله عليه وسلم فَرَأَيْتُهُ تَنَخَّعَ فَدَلَكَهَا بِنَعْلِهِ .

 

উবায়দুল্লাহ ইবনু মুআয আল আম্বারী (রহঃ) ….. আবদুল্লাহ ইবনু শিখখীর (রাযিঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেন, আমি রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর পিছনে সলাত আদায় করেছি। আমি দেখলাম তিনি কাশি ফেলে তা জুতা দিয়ে ঘষে (মাটির সাথে মিশিয়ে) দিলেন। (মুসলিম শরীফ ১১২১,ইসলামী ফাউন্ডেশন ১১১৪, ইসলামীক সেন্টার ১১২৩)

 

কোন ওজর ছাড়া কাশি দিলে নামাজ নষ্ট হয়ে যায়। তবে যদি ওজরের কারণে হয় তাহলে নামাজে কাশি দিলে নামাজ নষ্ট হয় না।

 

আপনি যেহেতু স্পষ্ট করে কেরাত পড়ার জন্য কাশি দিচ্ছেন তাই আপনার নামাজের কোন ক্ষতি হবে না এবং মুসল্লিদের নামাজেরও কোন ক্ষতি হবে না।

 

অবশ্য কারও যদি নামাজে এত বেশি কাশি দিতে হয় যার কারণে মুসল্লিদের একাগ্রতা থাকে না তাহলে তার নামাজের ইমামতি করা উচিৎ নয়।

 

কারণ এতে মুসল্লিদের মন বিক্ষিপ্ত হয়ে যায়। খুশু-খুযূ দূর হয়ে যায়। আর নামাজের মধ্যে খুশু-খুযূ রক্ষা করা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আল্লাহ তাআলা বলেন-

 

قَدْ أَفْلَحَ الْمُؤْمِنُونَ . الَّذِينَ هُمْ فِي صَلاتِهِمْ خَاشِعُونَ

 

‘সেসব মুমিনরা সফলকাম, যারা তাদের নামাজে বিনয়াবনত থাকে।’ [সূরা মুমিনুন, আয়াত: ১-২]

 

আদ্দুররুল মুখতার ১/৬১৯; আলমুহীতুল বুরহানী ২/৬৫; ফাতাওয়া হিন্দিয়া ১/৮৬

 

আল্লাহ তা‘আলাই সবচেয়ে ভালো জানেন।