ঘরের দেয়াল রং করার আগে যে বিষয়গুলো জানা জরুরি

ঘর আমাদের কাছে সবথেকে প্রিয় জায়গা। আজকের দিনে আমরা সবাই আমাদের ঘরের দেয়াল রং দ্বারা রাঙিয়ে তুলি। রঙ আমাদের মেজাজ এবং আবেগ প্রভাবিত করার ক্ষমতা আছে। ওয়াল পেইন্টিং করার আগে কিছু বিষয় জানা অত্যন্ত জরুরি। 

 

ওয়াল পেইন্টিংয়ের কিছু খুঁটিনাটি:

 

ঘরের দেয়ালে রং ব্যবহারের ক্ষেত্রে বাসিন্দাদের পছন্দ বা রুচি ও মনস্তাত্ত্বিক দিকগুলো প্রাধান্য পায়। সাধারণত বিভিন্ন ঘরের রং আলাদা হলেই ভালো হয়। তবে ঘরের তিন দেয়াল অফ-হোয়াইট কিংবা সাদা রেখে বাকি এক দিকের দেয়ালে রঙের ভিন্নতা আনলে সব দিক থেকেই ভালো। বয়স্ক মানুষেরা বেশি রঙের ব্যবহার অপছন্দ করলে তাঁদের ঘরের জন্য চার দেয়ালেই হালকা বা অফ-হোয়াইট ধরনের রং ব্যবহার করতে পারেন।

 

বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, বিভিন্ন রঙের মিশ্রণ বা ইলিউশন ব্যবহার করলে ফ্লোরাল কিংবা লতাপাতা নকশার ইলিউশনকে প্রাধান্য দেওয়া উচিত। পুরো বাড়ির ছাদ ও মেঝেতেও সাদা রংয়ের উপস্থিতি থাকলে ভালো। এতে ঘরগুলোকে প্রশস্ত মনে হয়। অফ-হোয়াইট কিংবা সাদার পরিবর্তে চার দেয়ালজুড়ে একই রং ব্যবহার করলে হিজিবিজি ও আবদ্ধ পরিবেশ সৃষ্টি হয়।

 

ঘর অনুযায়ী রং নির্বাচন:

 

প্রধান দরজার আশেপাশে: 

ঘরের প্রধান দরজা দিয়েই আমরা ক্লান্ত হয়ে ঘরে ঢুকি কিংবা সতেজ হয়ে বের হই। তাই প্রধান দরজার আশেপাশে উজ্জ্বল রং ব্যবহার করা উচিত। কালো, নীল, ধুসর ধরনের রং এখানে এড়িয়ে গেলে ভালো।

 

ড্রয়িংরুম: 

সবার আগে ড্রয়িংরুমটাই বাইরের মানুষের চোখে পড়ে। তাই ড্রয়িংরুমটা রুচিশীল রংয়ে রাঙানো জরুরী। এক্ষেত্রে রোজ বেরি, ওশেন গ্রীন, ফ্রেঞ্চ গ্রে, ভায়োলেট, ক্রিম কালার ও লেমন ইয়ালো হতে পারে ভালো রং। কারন এই রংগুলো মনকে উজ্জীবিত ও সতেজ করে তোলে।

 

ডাইনিংরুম:

 হলুদ বা কমলার মতো উষ্ণ, উজ্জ্বল রংগুলো আমাদের ক্ষুধা বাড়াতে সাহায্য করে। তাই বিভিন্ন রেস্টুরেন্টের দেয়াল ও ইন্টেরিয়রে সাধারনত এই তিনটা রংকে গুরুত্ব দেয়া হয়। আবার হই-হুল্লোড়, আড্ডা এগুলো ডাইনিংরুমেই খুব বেশি হয়। তাই ডাইনিংরুমে যে কোনো উজ্জ্বল রংয়ের ব্যবহার সেখানে সুন্দর অনুষঙ্গ হিসেবে কাজ করে।

 

বেডরুম: 

দিনশেষে বেডরুমটাই আপনার স্বস্তির জায়গা। তাই শোবার ঘরের জন্য হালকা, সতেজ, শান্তি ও স্নিগ্ধ আমেজ আনে এমন রং থাকা উচিত। এ ক্ষেত্রে হোয়াইট, অফ হোয়াইট, লাইট ভায়োলেট, লাইট গ্রিন, লেমন ইয়েলো, ফ্রেঞ্চ গ্রে, ক্রিম ইত্যাদি শীতল রং দেওয়া যায়। এই ধরনের রং মনে আনে শান্তি ও স্বস্তির আমেজ। তাই শোবার ঘরে এই রংগুলোরই বেশি ব্যবহার হয়। সেক্ষেত্রে গাড় রং বেডরুমে এড়িয়ে যাওয়াই ভালো।

 

রান্নাঘর: 

ঘরে সবুজের ছোঁয়া রাখতে চাইলে খাবারের ঘরটা কাজে লাগানো যেতে পারে। ঘর ছোট হলে এখানে ব্যবহৃত জিনিসগুলো একটু সবুজ রঙের হলে সহজেই মানিয়ে যাবে। রান্নাঘরে সূর্য বা প্রাকৃতিক আলোর প্রবেশ নিশ্চিত করা খুবই জরূরী। এতে করে রংয়ের বহুমুখী ব্যবহার নিশ্চিত করা সম্ভব হয়। তাই রান্নাঘরে রং করার সময় গাঢ় রংয়ের ব্যবহার এড়িয়ে যাওয়াই ভালো হবে।

 

বাচ্চাদের ঘর: 

ছোট শিশুদের ঘরের রং বাছাইয়ের ক্ষেত্রে সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত। কারন রং বাচ্চাদের মনের ওপর প্রভাব ফেলে অনেক বেশি। বাচ্চাদের ঘরে রং করার আগে তার সঙ্গে কথা বলে পছন্দ বুঝে নেওয়া যেতে পারে। শিশুর পছন্দের কোনো চরিত্র থাকলে সেটা আঁকিয়ে নিতে পারেন দেয়ালে। তবে এখানে এমন চরিত্রই আঁকা উচিত, যা শিশুর অন্তত পাঁচ-আট বছর পছন্দের তালিকায় থাকতে পারে।

 

রং নির্বাচনে যে ভুলগুলো এড়িয়ে যাবেন:

 

ঘরের রং নির্বাচন করা খুব সহজ কিছু না। বরং মাঝে মাঝে আমাদের ধাঁধায় পড়ে যেতে হয়, কোন ঘরের জন্য কোন রং নির্বাচন করবো সেটা নিয়ে। তাই রং নির্বাচনের ক্ষেত্রে আমাদের কিছু ভুল সম্পর্কে সচেতন থাকতে হবে। ঘরের জন্য রং পছন্দ করতে গিয়ে যে ভুলগুলো সবচেয়ে বেশি হয় সেগুলো হলো:

 

প্রথমেই ওয়াল পেইন্ট নির্বাচন করা:

 ঘরের আসবাবপত্রের কথা মাথায় না রেখেই অনেকসময় আমরা ঘরের জন্য রং নির্বাচন করে ফেলি। এই ভুলটা করা যাবে না। প্রথমে আমাদের মাথায় রাখতে হবে, ঘরে কোন কোন রংয়ের আসবাবপত্র রয়েছে। সেই রংয়ের সাথে যায় এমন ওয়াল পেইন্ট বেছে নেয়া উচিত।

ঘরের ‘মুড’ নির্ধারন করতে না পারা: প্রতিটা ঘরের আলাদা মুড বা আবহ থাকে। যেমন, আপনি যদি চান মাস্টার বেডরুমের পরিবেশ হবে শান্ত, তাহলে হালকা কোনো রং বেছে নিতে হবে। তেমনি ড্রয়িংরুমে যদি চান প্রাণবন্ত পরিবেশের আবহ আনতে, সেক্ষেত্রে যে কোনো উজ্জ্বল রং নির্বাচন করা উচিত।

 

সব ঘরের জন্য একই ধরনের রং বেছে নেয়া: সব ঘরে একই টাইপের রং ব্যবহার করলে সেটা হয়ে ওঠে একঘেয়ে। এই জন্য ঘরের ব্যবহার বুঝে সেটাতে উজ্জ্বল বা হালকা রং বেছে নিতে হবে।

 

প্রাকৃতিক আলোর প্রতি খেয়াল না রাখা: 

যত বৈচিত্রপূর্ণ লাইটই ব্যবহার করি না কেন, আউটলুক কেমন হবে সেটা নির্ভর করে প্রাকৃতিক আলো কতটুকু ঘরে প্রবেশ করতে পারছে তার উপর। যদি যথেষ্ট পরিমাণে আলো বাতাস ঘরে প্রবেশ করে, তাহলে হালকা রং বেছে নেয়া যেতে পারে। কিন্তু ঘরের অবস্থান যদি এমন হয় যে খুব বেশি দিনের আলো ঢুকতে পারে না, সেক্ষেত্রে উজ্জ্বল রং ব্যবহার করা উচিত।

রং পরীক্ষা না করা: 

ঘরের ভেতরে বা বাইরে, যেখানেই রং করেন না কেন, সেটা বেশ ব্যয়বহুল। তাই হুট করে রং নির্বাচন না করে সেটা নিয়ে চিন্তা ভাবনা করা উচিত। দোকানে যে রং ভালো লাগবে সেটা আপনার দেয়ালে নাও ভালো লাগতে পারে। তাই রং করার আগে ছোট করে ট্রায়াল করে নিতে পারেন। এভাবে পরীক্ষা করে নিলে রং নির্বাচনটা যথাসম্ভব নিখুঁত হবে।

 

ভেতরের দেয়াল বনাম বাইরের দেয়ালের রং নির্বাচন:

ঘরের ভেতরের এবং বাইরের দেয়ালের কাজ বিপরীতমুখী। তাই রং নির্বাচনের ক্ষেত্রে ঘরের ও বাইরের দেয়ালের জন্য আলাদা রং বেছে নেয়া উচিত।

 

ঘরের ভেতরের রং: 

ঘরের ভেতরে দুই ধরনের রং বেছে নেয়া যেতে পারে। একটি হচ্ছে ডিসটেম্পার, অন্যটির নাম প্লাস্টিক পেইন্ট। ডিসটেম্পার করা হয় সাধারণত ইট, কংক্রিট ও প্লাস্টারের ওপর। অ্যাক্রেলিক, সিনথেটিক, ড্রাই ইত্যাদি হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের ডিসটেম্পার। অ্যাক্রেলিক ডিসটেম্পার পানি দিয়ে ধোয়া যায়। কিন্তু সিনথেটিক ও ড্রাই ডিসটেম্পার পানি দিয়ে ধোয়া যায় না। ডিসটেম্পার ব্যবহার করতে না চাইলে সেক্ষেত্রে প্লাস্টিক পেইন্ট বা প্লাস্টিক ইমালশন বেছে নিতে পারেন। এটা হচ্ছে পানি ভিত্তিক রঙ, যা দীর্ঘস্থায়ী। এই রং আপনি পানি দিয়েও ধুতে পারবেন। প্লাস্টিক পেইন্ট তিন ধরণের- রেগুলার, ইকোনমিক ও প্রিমিয়াম ইমালশন।

 

বাড়ির বাইরের দেয়ালের রং: 

বাড়ির বাইরের দিকে যে রং-ই ব্যবহার করেন না কেন, সেটা হতে হবে অনেক বেশি টেকসই ও সুরক্ষিত। কারন বাইরের দেয়ালকে রোদ- বৃষ্টির প্রভাব মোকাবেলা করতে হয়। তাই অনেকে সিমেন্ট পেইন্ট রং বেছে নেন। এই রং ওয়াটার বেজড রং। তবে বাইরের দেয়ালে অ্যাক্রেলিক ইমালশন রংয়ের ব্যবহার হয় সবচেয়ে বেশি। কারন এই রং দীর্ঘস্থায়ী ও পানি দিয়ে ধোয়া যায়। অনেকে আবার টেক্সার প্লাস্টার ব্যবহার করে থাকেন। এটা ইমালশন ভিত্তিক রঙ। এতে পানির বদলে ইমালশন ব্যবহার করা হয়।

খেয়াল রাখুন হালকা রঙে ঘর বড় দেখায়। গাঢ় রঙে ঘর ছোট মনে হয়। কম আলোর ঘরে হালকা রং ব্যবহার করুন।

ঘরের সিলিংয়ের রং নিরপেক্ষ হওয়া উচিত। সিলিংয়ে সাদা বা দেয়ালের রং থেকে আরো হালকা রং ব্যবহার করলে ঘর উজ্জ্বল দেখায়।