কনডম ব্যবহার – না জেনে যেসব মারাত্নক ভুল করছেন

কনডম ব্যবহার (using condom) ছোট রাখতে গর্ভধারণ এড়ানোর কার্যকর একটি উপায় কনডমের ব্যবহার। এটি যৌনবাহিত রোগ থেকেও সুরক্ষা দিতে পারে। কিন্তু কনডম সবসময় নিখুঁত কাজ করে না। তখন গর্ভধারণের ঝুঁকি বাড়ে।

তবে গবেষকরা বলছেন, সঠিকভাবে এক্সটারনাল কনডম (মেল কনডম) ব্যবহার করা হলে গর্ভধারণের সম্ভাবনা ৯৮ শতাংশ কমে যায়। কিন্তু বাস্তবতা হলো তার পরও এক বছরে ১০০ জনের মধ্যে ১৫ জনের সঙ্গিনী গর্ভবতী হয়ে পড়েন। কারণ পুরুষ সঙ্গীর অজ্ঞানতা। তবে এটাও জানা উচিত ইন্টারনাল কনডম (ফিমেল কনডম) মেল কনডমের তুলনায় কম কার্যকর।

 

ফ্লোরিডার অরলান্ডোতে অবস্থিত উইনি পামার হসপিটাল ফর ওমেন অ্যান্ড বেবিসের গাইনোকলোজিস্ট ক্রিস্টিন গ্রিভস বলেন, কনডম ব্যবহারে ছোটখাটো ভুলে গর্ভধারণের ঝুঁকি বাড়াতে পারে। যেমন যৌনমিলনের সময় হঠাৎ যদি কনডম খুলে যায় বা ছিঁড়ে যায় ইত্যাদি। এখন প্রশ্ন হলো- সঠিক উপায়ে কনডম ব্যবহার করবেন কীভাবে?

এ প্রসঙ্গে ভার্জিনিয়ার রিচমন্ডে অবস্থিত ভার্জিনিয়া কমনওয়েলথ ইউনিভার্সিটির অবস্টেট্রিকস অ্যান্ড গাইনোকলোজি বিভাগের অধ্যাপক ফ্রান্সেস ক্যাসি বলেন, প্যাকেট থেকে কনডম বের করার পর দৃশ্যমান ছিদ্র বা ছেঁড়া আছে কিনা আগে দেখে নিতে হবে। এবার নিশ্চিত হোন যে, কনডমটি নিচের দিকে রোল করা যাচ্ছে। যদি না যায় তাহলে বুঝতে হবে, উল্টোভাবে কনডম পরছেন আপনি। কনডমের অগ্রভাগে চিমটি দিয়ে বাতাস বের করে নিতে হবে। যৌনমিলন শেষ হলে কনডমের গোড়া ধরে ভ্যাজাইনা থেকে বের করে আনতে হবে। অন্যথায় গর্ভধারণের ঝুঁকি থেকেই যাবে। এমনকি যৌনবাহিত রোগেরও ঝুঁকি আছে।

ফ্রান্সেস ক্যাসি আরো পরামর্শ দিচ্ছেন যে, একই সময়ে একাধিক কনডম ব্যবহার করবেন না। এতে ঘর্ষণে কনডম ছিঁড়ে যেতে পারে। পকেট বা হট কারের মতো গরম পরিবেশে কনডম রাখবেন না, বিশেষ করে মেল কনডম। কারণ ল্যাটেক্স দুর্বল হয়ে কনডম ছিঁড়ে যেতে পারে। কনডম ১০৪ ডিগ্রি ফারেনহাইটের বেশি তাপমাত্রার সংস্পর্শে এলে ব্যবহার করবেন না। প্যাকেট খোলার সময় নির্দেশিত স্থানেই খুলুন। এ সময় দাঁত বা নখ ব্যবহার করবেন না, কারণ ছিঁড়ে যেতে পারে।

 

READ MORE:  শুটকি মাছ আমাদের কি ক্ষতি করছে?

তারিখ দেখে নিতে হবে, কনডমে কোনো ধরনের ড্যামেজ থাকলে ব্যবহার করা উচিত নয়। কনডমের সঙ্গে শুধু পানি বা সিলিকন বেসড লুব্রিকেন্ট ব্যবহার করতে পারেন। ব্যবহৃত কনডম পুনরায় ব্যবহার করবেন না- নারী বা পুরুষ উভয়ের জন্য একথা প্রযোজ্য। ৩০ মিনিটের বেশি যৌনক্রিয়ায় ব্যস্ত থাকলে আরেকটি নতুন কনডম পরে নিতে হবে। 

 

 

কনডম ব্যবহার (using condom) সম্পর্কে কিছু টিপস

 

১) কনডমের প্যাকেটটি খুব সতর্কতার সাথে খুলতে হবে। সবসময় কনডম প্যাকেট এর যে কোন এক প্রান্ত থেকে খোলা ভালো। কারণ প্যাকেটটি খুলবার সময় যদি কনডমটি ভিতর থেকে কনডম ফুটা হয়ে যায় অথবা ফেটে যাই তাহলে কনডমটি সম্পূর্ণ ব্যবহার অনউপযোগী হয়ে যেতে পারে।

২) এবার কনডমটি প্যাকেট থেকে বের করবার পর খেয়াল রাখতে হবে, কনডমটি কোন পাশ থেকে রোল হবে। আপনি রোলিং পাশটি নিশ্চিত করবার জন্য একটি আঙ্গুল হালকা করে কনডমের রাবারের ভিতর প্রবেশ করে রোলিং পাশটি নিশ্চিত করতে পারেন।

৩) কনডম ব্যবহারের পূর্বে অবশ্যই ভিতরের বাতাস বের করে নিতে হবে অন্যথায় তা ফেটে গিয়ে শুক্রানু যোনিপথে প্রবেশ করতে পারে।

৪) এইবার আস্তে আস্তে হালকা ভাবে রোল করে কনডমটি আপনার গোপনঅঙ্গে পরিয়ে নিন।

৫) সম্পূর্ণ উত্তেজনা না হওয়া পর্যন্ত কনডম গোপন অঙ্গে না পরাই ভালো। কারণ উত্তজনা কম থাকলে পরবর্তীতে কনডম খুলে আসতে পারে।

৬) এইবার মিলন শেষে উত্থিত অবস্থায় লিঙ্গ বের করে নিয়ে আসতে হবে না হলে অনেক সময় শুক্রানু ছড়িয়ে পরতে পারে।

৭) মিলন শেষে ব্যবহারিত কনডম এর শেষ প্রান্তে হালকা ভাবে একটি গিট বাধে দেওয়া ভালো, যার ফলে শুক্রানু বাইরে প্রবেশ করবে না।