অক্টোপাস নিয়ে কিছু আজব তথ্য

প্রাণিজগতের একটি বিচিত্র প্রাণীর নাম হচ্ছে অক্টোপাস। আজকে অক্টোপাস সম্পর্কে কিছু বিচিত্র তথ্য জানাবো। অক্টোপাস একটি সামুদ্রিক প্রাণী। এদের বৈজ্ঞানিক নাম হল octopus vulgaris

এদের আটটি বাহু থাকে। এই আটটি বাহুর জন্যই এদের নাম হয়েছে অক্টোপাস। অক্টোপাসের বিভিন্ন ধরনের বিচিত্র বৈশিষ্ট্য রয়েছে। আজকে ইনফো হকারে অক্টোপাস সম্পর্কে কিছু বিচিত্র  তথ্য শেয়ার করতে যাচ্ছি।

বিরক্ত হলে এরা নিজেদের বাহু খেয়ে ফেলতে পারে

অক্টোপাস এর মধ্যে কিছু প্রজাতি রয়েছে যারা অটোফেজি। এরা বিভিন্ন সময়ে নিজের বাহু খেয়ে ফেলতে পারে। একটি গবেষণার ফলাফল জানাতে গিয়ে প্রাণিবিদরা এমনই মন্তব্য করেছেন।

তারা বলেছেন যে বন্দী অবস্থায় বিরক্ত অক্টোপাস কখনো কখনো তাদের বাহু খেয়ে ফেলে।

অক্টোপাসরা বিষ বহন করতে পারে

কিছু কিছু প্রজাতির অক্টোপাস আছে যারা নিজেদের শরীরে বিষ বহন করতে পারে। এরা নিজেদের আত্মরক্ষা করার জন্য এই বিষ ব্যবহার করে।

এছারাও তারা তাদের শিকার ধরার জন্য এই বিষ ব্যবহার করে। ধারনা করা হয় যে এই বিষ তাদের ভিতরে বাস করা ব্যাকটেরিয়া দ্বারা উৎপন্ন হতে পারে।

নীল রঙের রিংযুক্ত এক ধরনের অক্টোপাস আছে যারা খুবই বিষাক্ত। যাদের এক কামরে কয়েক মিনিটের মধ্যে একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ পঙ্গু হয়ে যেতে পারে।

অক্টোপাসরা সরঞ্জাম ব্যবহার করতে পারে

অক্টোপাসরা বেশ বুদ্ধিমান প্রাণী। তারা বিভিন্ন ধরনের সরঞ্জাম ব্যবহার করতে পারে। এরা বিভিন্ন সময় সামুদ্রিক শামুক, ঝিনুকের খোলস নিজেদের থাকার জন্য ব্যবহার করে।

২০০৯ সালে বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন যে-

“কিছু প্রজাতির অক্টোপাসরা তাদের বাসা বানাতে নারিকেলের খোসা ব্যবহার করে থাকে।”

অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়া যাদুঘর গবেষক জুলিয়ান ফিন বলেছেন যে-

 

“আমি বহুবার বহু অক্টোপাসকে নারিকেলের খোসা, শামুক, ঝিনুকের খোলস ব্যবহার করতে দেখেছি। একইসাথে আমি এগুলোর ভিডিও করেছি।”

অক্টোপাসরা ছদ্দবেশের ওস্তাদ

অক্টোপাসরা ছদ্দবেশ ধারন করতে খুবই পারদর্শী। এরা এক সেকেন্ডের ১/৩ ভাগের মধ্যে এদের রং পরিবর্তন করতে পারে। এরা শিকার করতে, আত্মরক্ষা করতে রং পরিবর্তন করে থাকে।

এরা আসেপাসের বিভিন্ন বস্তুর সাথে এমনভাবে মিশে যেতে পারে যে এদের চেনাই যায়না।

এরা সল্পজীবী জীব

আপনি জানেন কি অক্টোপাসরা সল্পজীবী জীব। এদের জীবনকাল মাত্র ২-৩ বছর। কিছু প্রজাতির অক্টোপাস আছে যারা মাত্র ৬ মাস বাঁচে।

তারা বোতলের ছিপি খুলতে পারে

শুনে অবাক হলেন কি? অবাক হবার মতই বিষয়। তবে সকল অক্টোপাসরা পারে কিনা জানিনা? তবে বিলি নামের একটি অক্টোপাস এই পরীক্ষা পাশ করেছে।

সিটেল একাডেমীর প্রানিবিদরা বিলির শক্তি ও বুদ্ধি পরীক্ষা করার জন্য তাকে একটি বোতলে তার খাবার আটকে দেন।

 

বিলি ৫ মিনিট সময় নেয় বোতলটি খোলার জন্য। তবে অক্টোপাসের মত প্রাণীর জন্য এটা খুব বেশী অবাক করার বিষয় নয়। কারন তারা ছুরির সাহায্য ছাড়াই শামুক, ঝিনুকের খোলস খুলে ফেলতে পারে।

অক্টোপাসের শুরগুলি শক্তিশালী ও সংবেদনশীল

অক্টোপাসের শুরগুলি শক্তিশালী ও সংবেদনশীল ধরনের হয়ে থাকে। এরা এদের শুরের সাহায্যে সকল কাজ করে থাকে। এদের শুরে অনেক ধরনের সেন্সর থাকে।

এই শুরগুলি প্রতিটি আলাদা ভাবে নাড়াচাড়া করতে পারে। এদের শুরগুলি চরম সংবেদনশীল হয়ে থাকে।

 

অক্টোপাসরা খেলাধূলা করতে ভালবাসে

অক্টোপাসরা খুবই কৌতূহলী প্রাণী। এরা খেলাধূলা করতে ভালবাসে। অক্টোপাসরা পানির টানে ভেসে আসা বিভিন্ন জিনিস নিয়ে খেলে থাকে। অনেকে বলেছেন আটকা অবস্তায় এরা বল দিয়েও খেলে থাকে।

অক্টোপাসরা হলি খেলে থাকে

অবাক হয়ে গেলেন কি? অক্টোপাসরা আবার হলি খেলে কিভাবে? তাহলে শুনুন কিভাবে এরা হলি খেলে? এরা আক্রান্ত অবস্তায় শত্রুর দিকে রং ছুড়ে দিতে পারে। এরা শত্রুর দিকে রং ছুড়ে দিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়।