একাকী নামাজ পড়লে একামত দিতে হবে কি?

হ্যাঁ, একাকী যখন সালাত আদায় করবেন তখন, যদি ফরজ সালাত হয় আজান একামত দিয়ে উচ্চস্বরে কেরাত পড়তে পারবেন। আপনি যদি মাগরিব কিংবা ফজরের সালাত হয় তাহলে উচ্চস্বরে আপনি সুরা কেরাত পড়বেন এই আশায় যে আমার আয়াত আমার তেলওয়াত শুনে যদি কেউ আমার সাথে যোগ দেয়।

 

একাকী নামাজ আদায়কারীর জন্য ইকামত দেওয়া মুস্তাহাব। (হিদায়া ১/৯২)

 

উকবা ইবনে আমির (রা.) থেকে বর্ণিত হাদিসে তিনি বলেন, আমি রাসুলুল্লাহ (সা.)-কে বলতে শুনেছি—

 

‘তোমার রব সে ব্যক্তির ওপর খুশি হন, যে পাহাড়ের উচ্চশৃঙ্গে বকরি চরায় এবং নামাজের জন্য আজান দেয় ও নামাজ আদায় করে। আল্লাহ তাআলা বলেন, আমার এই বান্দাকে দেখ! নামাজের জন্য সে আজান ও ইকামত দিচ্ছে। সে আমাকে ভয় করছে। আমি আমার বান্দাকে ক্ষমা করে দিলাম ও জান্নাতে প্রবেশ করালাম।’ (আবু দাউদ, হাদিস : ১২০৩)

 

ঘরে নামাজ আদায়কারী মুকিমের জন্য আজান-ইকামত ছেড়ে দেওয়া বা না দেওয়া মাকরুহ নয়। (হালবি কাবিরি : ৩৭২)

 

তবে মুসাফিরের জন্য আজান-ইকামত উভয়টিকে তরক করা মাকরুহ। তবে ঘরে একাকী নামাজ আদায়কারী মুকিম ব্যক্তির জন্য মাকরুহ হবে না। অবশ্য মুকিম এবং মুসাফির উভয় প্রকার ব্যক্তিদের জন্য আজান-ইকামত দেওয়া মুস্তাহাব বা উত্তম। (কানজুদ দাকাইক, খণ্ড : ০১; পৃষ্ঠা : ২৬৫)

 

এ বিষয়ে একটি হাদিসে কুদসি আছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ, রাসূলে আকরাম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন,

যে কোন এক ব্যক্তি পাহাড়ের চূড়ায় রাখাল মানুষ তিনি সেখানে সালাতের সময় হয়েছে তিনি ভয় পেলেন আমি তো জামাতের শামিল হতে পারছিনা, অনেক উপরে আছি ছাগল চড়াচ্ছি, তখন তিনি ওইখানে আযান দিলেন এবং একামত দিলেন, দিয়ে সালাত শুরু করলেন এই আশায় যদি কেউ আমার সাথে যোগ দেয়।

 

এখন বলাই বাহুল্য ওই পাহাড়ের চূড়ায় কে তার সাথে যোগ দিবে সম্ভাবনা বাহ্যিকভাবে নাই আমরা হলে বলতাম আমরা হলে বলতাম এখানে আসার সম্ভাবনা কোনোভাবেই নাই। অতএব আমি আস্তে আস্তে পড়ি কে আসবে। আর তারপরেও তিনি আযান দিয়েছেন একামত দিয়েছেন একাকি সালাত শুরু করে দিয়েছেন।

 

এই আশায় যে কেউ যদি আমার সাথে যদি সলাতে যোগ দেয়। তার এই আচরণকে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তাআলা খুব বেশি পছন্দনীয় হয়েছে এবং হাদীসে কুদসীতে ওই ব্যক্তিকে ক্ষমা ঘোষণা এসেছে তার জন্য পুরস্কার ঘোষণা এসেছে।

 

এখান থেকে বোঝা গেল যে একা কেউ যদি সালাত আদায় করেন ফরজ সালাত তাহলে তাকবীর গুলো দিবেন এবং একামত দিয়ে শুরু করবেন আযান দেওয়া হয় ওই এলাকাতে তাহলে একামত দিবেন আর যদি আজান হয়ে থাকে তাহলে অত্যন্ত একমত দিয়ে সলাত শুরু করে দিবেন।