দুর্বল স্মৃতিশক্তি প্রতিরোধে করণীয়

দুর্বল স্মৃতি (স্মৃতিশক্তির দুর্বলতা) – 

 

দুর্বল স্মৃতি (স্মৃতিশক্তির দুর্বলতা) কি?

 

দুর্বল স্মৃতিশক্তি হলো তথ্য সঞ্চয় এবং তা মনে করার ক্ষেত্রে অসুবিধার সম্মুখীন হওয়া। চাবি রাখার স্থান অথবা বিল জমা দেওয়া হয়েছে, না হয়নি – এক লহমায় তা ভুলে যাওয়া স্বাভাবিক ব্যাপার এক্ষেত্রে। কোনও ব্যক্তিরই সারাজীবন নিখুঁত স্মৃতিশক্তি স্থায়ী হয় না। বার্ধক্যজনিত স্মৃতিশক্তি লোপের ঘটনা সাধারণ ব্যাপার। তবে, আপনি যদি গাড়ি চালানো, যেখানে সারাজীবন ধরে রয়েছেন বাড়ি ফেরার সেই রাস্তার মতো ইত্যাদি তথ্য ভুলে যান, তাহলে এই স্মৃতিশক্তি হ্রাস অন্তর্নিহিত অসুস্থতার ইঙ্গিতবাহক, এক্ষেত্রে আপনার চিকিৎসা প্রদানকারীর পরামর্শ নেওয়া উচিত।

 

#এর সাথে জড়িত প্রধান লক্ষণ ও উপসর্গগুলি কি কি?

 

১.বয়স বৃদ্ধির সাথে সাথে স্মৃতিশক্তির দুর্বলতা সাধারণ ঘটনা, তবে নিম্নলিখিত উপসর্গগুলি স্থায়ী অন্তর্নিহিত কগনিটিভ রোগের অবস্থার নির্দেশ দেয়:

 

২.একই প্রশ্ন বারবার জিজ্ঞাসা করা।

 

৩.নির্দেশ অনুসরণে অসুবিধা। 

 

৪.চেনা লোকজন ও জায়গার সম্পর্কে বিভ্রান্তি।

 

৫.একটি পরিচিত জায়গার দিক ভুলে যাওয়া।

 

৬.সাধারণ কথোপকথনে অসুবিধা। জরুরি মিটিং এবং কাজকর্মে যোগ দিতে ভুলে যাওয়া। 

৭একই বয়সের অন্যান্য ব্যক্তির তুলনায় বেশি

স্মৃতিশক্তি জনিত সমস্যায় পড়া।

 

#এর প্রধান কারণ কি?

 

দুর্বল স্মৃতিশক্তির কারণগুলি নিম্নলিখিত:

 

বার্ধক্য, এটি সাধারণ ব্যাপার। আলজাইমার রোগ এবং অন্যান্য ধরনের স্মৃতিভ্রংশ।

 

*স্ট্রোক।

 

*মস্তিষ্কে টিউমার।

 

*মানসিক অবসাদ।

 

*মস্তিষ্কে আঘাত।

 

*উদ্বিগ্নতা কমানো, অবসাদরোধী, খিঁচুনিনাশক,

 

*কোলেস্টেরল কমানোর মতো অন্যান্য।

 

*নির্দিষ্ট ওষুধপত্র।

 

#এটি কিভাবে নির্ণয় ও চিকিৎসা করা হয়?

 

দুর্বল স্মৃতিশক্তির কারণগুলি সনাক্ত করার সঙ্গে এর রোগ নির্ণয় যুক্ত। নিম্নলিখিত উপায়গুলি স্বীকৃতি পদ্ধতি:

 

°চিকিৎসাজনিত ইতিহাস। শারীরিক পরীক্ষা।

 

°ল্যাবোরেটরি টেস্ট।

 

°সাইক্রিয়াটিক এভলিউশন টেস্টের সাহায্যে চিন্তা

 ভাবনার পরিবর্তন চিহ্নিত করা।

° মস্তিষ্কের এক্স-রে, সিটি স্ক্যান এবং এমআরআই।

 

°স্মৃতিশক্তি দুর্বলতার কারণ বার্ধক্য, নাকি কোনও রোগ, এই পরীক্ষাগুলি সেই সিদ্ধান্তে আসতে সাহায্য করে।

 

চিকিৎসা পুরোপুরি স্মৃতিশক্তি দুর্বলতার কারণগুলির ওপর নির্ভর করে হয়। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে স্মৃতিভ্রংশের কোনও প্রতিকার নেই এবং ডোনেপেজিল, রিভাস্টিগমাইন, মেমান্টাইন ও গ্যালান্টামাইনের মতো ওষুধগুলি সাময়িকভাবে উপসর্গগুলি থেকে স্বস্তি পাওয়ার জন্য দেওয়া হয়।

চিন্তা-ভাবনার সক্ষমতাকে উদ্দীপ্ত করে এমন ওষুধবিহীন থেরাপিও কার্যকরী ভূমিকা নেয়। এইধরনের থেরাপিগুলি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দলভিত্তিক থেরাপি এবং ব্রেন-টিজার গেম সংক্রান্ত।