বিগ ব্যাং – মহাবিশ্ব সৃষ্টির রহস্য

আমরা বলি যে পৃথিবী বিগ ব্যাং এর মাধ্যমে সৃষ্টি হয়েছে । কিন্তু বিজ্ঞানীরা বিগব্যাং তথ্যটা বিভিন্ন উপায় ব্যাখ্যা করে থাকে। বিগব্যাং আসলেই সত্য কিনা আমরা জানি না কিন্তু বিজ্ঞানীরা এটা নিয়ে এখনও গবেষণা চালিয়ে যাচ্ছে।   

 

Hense Lipersy দ্বারা সর্বপ্রথম 1608 সালে telescope  আবিষ্কৃত হয় । আর এর ফলে বিজ্ঞানীরা অনেক দূরের গ্রহ নক্ষত্র দেখতে সমর্থ হয় । পরবর্তীতে বিজ্ঞানী হাবল টেলিস্কোপ আবিষ্কার করে, যার নাম দেওয়া হয় হাবল টেলিস্কোপ  । এবং এটা তুলনামূলক অনেক শক্তিশালী ছিল । বিজ্ঞানী হাবল যখন তার টেলিস্কোপ দিয়ে গ্রহ নক্ষত্র দেখছিলেন, তখন তিনি আশ্চর্যজনকভাবে আবিষ্কার করলেন যে  মহাকাশ এর প্রত্যেকটি গ্রহ একে অপর থেকে দূরে সরে যাচ্ছে । তারপর শুরু করলেন এটা নিয়ে অনেক পরীক্ষা-নিরীক্ষার, পরে এটা প্রমাণিত হলো যে তার কথাই ঠিক । তাই তিনি একটি মতামত দেন। বিজ্ঞানী হাবল বলেন, যে আমাদের মহাবিশ্ব প্রতিনিয়ত সম্প্রসারিত হচ্ছে। 

 

 

আপনাদের কাছে বিষয়টা হয়তোবা একটু ঝামেলা মনে হতে পারে, তাই আমি সর্বপ্রথম এটা ক্লিয়ার করে রেখেছি ।একটি চুপসে থাকা বেলুনে যদি অনেকগুলো বৃত্ত এঁকে ফুলানো হয়  হয় তাহলে বৃত্তগুলো একে অপর থেকে দূরে সরে যায় । বিজ্ঞানী হাবল ঠিক এমনটাই বলেছিলেন। তবে মহাবিশ্ব ঠিক কতকাল ধরে প্রসারিত হবে এবং কতটুকু প্রসারিত হবে, তিনি এই ব্যাপার কিছু বলেন নি। 

 

 

এখন জানা যাক এসবের সাথে বিগ ব্যাং এর সম্পর্ক কিঃ

বিগ ব্যাং তত্ত্বের জনক হল জি ল্যামেটার। তাছাড়া বিজ্ঞানী আইনস্টাইন ও বিগব্যাং নিয়ে অনেক গবেষণা করেন। 

 

বিজ্ঞানী জি ল্যামেটার বলেছিলেন যে, যেহেতু আমাদের মহাবিশ্বটি 13.62 বিলিয়ন বছর পুরানো (1 বিলিয়ন = 100 মিলিয়ন বছর পুরানো)। তাই মহাবিশ্বটি এই ১৩.৬২ বিলিয়ন বছর ধরেই বিস্তৃত হচ্ছে (দূরবীনের আবিষ্কারের কারণে তিনি এটি বুঝতে পেরেছিলেন)।  সুতরাং আমরা যদি পিছনের দিকে চলে যাই, পৃথিবী আস্তে আস্তে সঙ্কুচিত হবে, এবং গ্রহগুলি, তারাগুলি আরও কাছে আসতে থাকবে, সুতরাং আমরা যদি পিছন দিকে চলে যাই তবে মহাবিশ্ব সঙ্কুচিত হবে এবং একটি বিন্দুতে পরিণত হবে এবং এই মহাবিশ্বের সমস্ত কিছুর ভর থাকবে  সে বিন্দুতে। তাই ধারণা করা হয় যে, সৃষ্টির শুরুতে আমাদের পুরো মহাবিশ্বটি শুধুমাত্র একটি বিন্দুতে অবস্থিত ছিল।এই বিন্দুর ভর এবং তাপমাত্রা ছিল অবিশ্বাস্য রকম ভাবে বেশি ।  এই উত্তাপের কারণে এটি একবারে বিস্ফোরিত হয় এবং এ থেকে সমস্ত গ্রহ, উপগ্রহ, তারা তৈরি হয়।  এটি বিগ ব্যাং থিওরি হিসাবে পরিচিত।

READ MORE:  পৃথিবীর ১০টি অমীমাংসিত রহস্য

 

বিগ ব্যাং তত্ত্ব  অনুযায়ী, ১৩.৬২ বিলিয়ন বছর আগে আমাদের  বিশ্বব্রম্মান্ড একক, আসীম ছোট এবং ঘনত্বের একটি বিন্দু ছিলো।

 

তারপর হলো এক মহাবিস্ফোরণ!

 

এই বিস্ফোরণ এক সেকেন্ডের ট্রিলিয়নের ভগ্নাংশের সময়ের মধ্যে ঘটে এবং মহাবিশ্বক আজ যেখানে রয়েছে সেখানে নিয়ে আসার জন্য আলোর গতির চেয়ে দ্রুত প্রসারিত হতে থাকে।  তবে জনপ্রিয় এই মহাজাগতিক কাহিনীটি বোঝার বিষয়টি পুরোপুরি সত্য নয়।  হতে পারে সেখানে একটি বিন্দু না থেকে অনেকগুলো বিন্দু ছিল। 

 

যেহেতু বিগব্যাং হওয়ার আগে সমস্ত বিশ্বব্রহ্মাণ্ড মাত্র একটি বিন্দুতে অবস্থিত ছিল, এবং তা বিস্ফোরণ(বিগ ব্যাং) এর ফলে সবকিছু সৃষ্টি হয়েছে। তাই মহাবিশ্ব সৃষ্টির শুরু হিসেবে বিগব্যাং কে ধরে নেওয়া হয় । 

 

বেশিরভাগ বিজ্ঞানী বিগ ব্যাং তত্ত্বকে সমর্থন করেন, সম্ভবত বিগ ব্যাং ঘটেছিল।  এডউইন হাবলই প্রথম বিগ ব্যাংয়ের ধারণা দিয়েছেন।  এর আগে, জি ল্যামেটার বিগ ব্যাং তত্ত্বটি উপস্থাপন করেছিলেন।  এই তত্ত্বটি 1920 এর দশকে আরও ব্যাপকভাবে গৃহীত হয়েছিল যখন বিজ্ঞানীরা বুঝতে পেরেছিলেন যে আমাদের ছায়াপথগুলি একে অপরের থেকে প্রতিনিয়ত দূরে সরে যাচ্ছে।

 

বিজ্ঞানীরা বুঝতে পারেন যে গ্যালাক্সিগুলি চলমান নয় বরং প্রসারিত হচ্ছে।  পুরো মহাবিশ্ব বিস্তৃত হচ্ছে।  এবং যদি এটি প্রসারিত হয়, তবে কোনও এক সময় এটি সঙ্কুচিত অবস্থায় ছিল !  আরও কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা বিগ ব্যাং তত্ত্বকে প্রমাণ করেছে যেমন বিগ ব্যাংয়ের সময়ে মহাবিশ্ব অনেক সংকুচিত  এবং ঘন ছিল এমন এক ধরণের প্লাজমা তৈরি এবং সেই প্লাজমায় যে কণা ছিল তা আমাদের পরিচিত ছিল।  কারণ আমরা জানি যে বর্তমান মহাবিশ্বে একধরণের কণা আছে যা, তখন থাকার কথা ছিল।

 

তবে কিছু জিনিস আছে যা এই তত্ত্বের রহস্য সমাধান করতে পারে না।  মহাজাগতিক তরঙ্গের পটভূমি থেকে প্রাপ্ত তথ্য প্রমাণ করে যে মহাবিশ্ব সমতল।  তবে বিগ ব্যাং তত্ত্ব অনুসারে মহাবিশ্বকে কিছুটা বাঁকা করা উচিত।

READ MORE:  প্রতিদিন ডিম খাওয়া কি স্বাস্থ্যের জন্য ভালো?

যদিও মহাবিশ্বের সর্বত্র তাপমাত্রা একইরকম বলে মনে হচ্ছে, এমন অনেক অংশ রয়েছে যেগুলি কোনও তাপমাত্রা আদৌ আছে কিনা তা নিয়ে বিজ্ঞানীরা সংশয় প্রকাশ করেছেন।  সর্বোপরি, যদি বিগ ব্যাং মহাবিশ্বের সূচনা হত, তবে বিস্ফোরণটি চৌম্বকীয় মনোপোল নামে একটি খুব উচ্চ শক্তির কণা তৈরি করত, যার অস্তিত্ব আজও খুঁজে পাওয়া যায় না।

 

তারমানে আমরা বিগ ব্যাং এর বিরুদ্ধে যুক্তি দাঁড় করে ফেলেছি,,, এখন প্রশ্ন হল, যদি বিগ ব্যাং  নাই হয়ে থাকে, তাহলে তখন আসলে কি ঘটেছিল?

 

ইনফ্লেশন নামক আরেকটি তত্ত্ব অনুসারে মহাবিশ্বটি ফাঁকা জায়গার ওঠানামা দ্বারা সৃষ্টি হয়েছিল।  মুদ্রাস্ফীতি তত্ত্ব নির্ভর করে শূন্যতার শক্তির পরিমানের উপর।  কোয়ান্টাম কণাগুলি অবিচ্ছিন্নভাবে প্রমাণ করে যে মহাবিশ্বের আসলে শক্তিতে ভরা ছিল, এমনকি তখন কোনও পদার্থের বিকিরণের অস্তিত্ব ছিল না।

 

 

মুদ্রাস্ফীতি তত্ত্ব বিগ ব্যাং থিউরির অনেকগুলি প্রাথমিক সমস্যা সমাধান করে।  মুদ্রাস্ফীতি তত্ত্ব একটি সমতল মহাবিশ্বের পূর্বাভাস দেয় এবং এটি যে গতিবেগে ঘটে তা প্রমাণ করে যে মহাবিশ্বের সমস্ত অংশের তাপমাত্রা একই। কারণ মুদ্রাস্ফীতি তত্ত্ব মহাবিশ্বের প্রতিটি পয়েন্টের মধ্যে যোগাযোগ সম্ভব করেছে।  মুদ্রাস্ফীতি তত্ত্ব এও বলেছে যে চৌম্বকীয় মনোপোলগুলি প্রসারণের আগেই থাকতে পারে তবে তাদের ঘনত্ব পরবর্তী সময়ে অনুসন্ধানের স্তরে নেমে আসত।  এছাড়াও, মহাকাশের শক্তির ঘনত্বের সেই ওঠানামাগুলি খুব ভালোভাবে ব্যাখ্যা করে, কীভাবে তারা, ছায়াপথগুলি এবং গ্যালাক্সি ক্লাস্টারগুলি তৈরি হয়েছিল।  যদি  অতিরিক্ত শক্তির এলোমেলো ক্লাম্প সম্ভব না হতো তবে আমাদের আজকের মানব সভ্যতা কখনই অস্তিত্ব লাভ করতে পারত না।

 

শেষ অবধি, যদি বিগ ব্যাং সম্পর্কে আপনার জ্ঞান মাত্র শুরু হয়ে থাক, তবে সেই পুরানো কল্পকাহিনীটি পুনর্বিবেচনার এখনি সময়।  এক্ষেত্রে, সম্ভবত, রূপকথার কাহিনীটি এরকম হবে- 

 

বহু, বহু বছর আগে, পদার্থ তৈরির আগে,  একটি বিন্দুতে আটকে থাকা সমস্ত শক্তি, চোখের পলকের চেয়েও কম সময়ে বিলিয়ন ট্রিলিয়ন গুন  প্রসারিত হয়েছিল।

READ MORE:  রোনালদো কেনো সরিয়ে রাখল কোকের বোতল? কোমল পানীয় কি সত্যিই ক্ষতিকর?

 

এর এই প্রসারনের ফলেই বিশ্বব্রহ্মাণ্ডের সাথে সাথে আমাদের আজকের পৃথিবীও সৃষ্টি হয়েছে আর আমরাও।