দই আমাদের সুস্বাস্থ্যের জন্য কতটা উপকারী?

দই সুপ্রাচীন কাল থেকেই মানুষের জন্য একটি অতি সুস্বাদু ও জনপ্রিয় খাবার। দই হলো এক প্রকার দুগ্ধজাত খাবার। দুধকে ব্যাকটেরিয়ার দ্বারা গাঁজনের মাধ্যমে দই তৈরি করা হয়। দুগ্ধজাত খাবারগুলোর মধ্যে দই পুরো পৃথিবী জুড়েই প্রচলিত বিখ্যাত একটি খাবার। দই আমাদের সুস্বাস্থ্যের জন্য অতি প্রয়োজনীয়। কিন্তু অনেকেই আমরা দইয়ের পুষ্টিগুণ সম্পর্কে জানি না। 

 

দইয়ে রয়েছে উচ্চ মাত্রার প্রোটিন ও ক্যালসিয়াম। ক্যালসিয়াম আমাদের দাঁত ও হাড়ের জন্য অতীব জরুরি। ১ কাপ দই থেকে আমরা আমাদের শরীরের জন্য দৈনন্দিন ক্যালসিয়াম চাহিদার ৪৮% পর্যন্ত পূূরণ করতে পারি। দই এর ভিতর প্রচুর পরিমাণ ভিটামিন বি রয়েছে। বিশেষ করে ভিটামিন বি টুয়েলভ ও রিবোফ্লাভিন রয়েছে যা আমাদের হৃদপিণ্ডকে নানারকম হৃদরোগের হাত থেকে রক্ষা করে এবং একইসাথে মস্তিষ্কের রোগও প্রতিরোধ করে। দইয়ে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম ও ফসফরাস। এই ম্যাগনেসিয়াম ও ফসফরাস আমাদের দেহের রক্ত সঞ্চালন স্বাভাবিক রাখে, হাড় ও দাঁতের গঠন ঠিক রাখে। প্রতি ২০০ গ্রাম দইয়ের ভিতর ১৩ গ্রামের মতো প্রোটিন থাকে। প্রোটিন আমাদের শরীরে শক্তি যোগায়। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। দইয়ের ভেতর রয়েছে উপকারী ব্যাকটেরিয়া। এদের প্রোবায়োটিকস বলে। এসব ব্যাকটেরিয়া আমাদের হজম শক্তি বৃদ্ধি করে হজমে সহায়তা করে। বিভিন্ন ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়ার বিরুদ্ধে এসব প্রোবায়োটিকস প্রতিরোধ গড়ে তোলো। নানা রকম রোগ যেমন- ডায়রিয়া এসবের হাত থেকে রক্ষা করে প্রোবায়োটিকস। তবে এখন দোকানে যেসব বাজারজাত দই পাওয়া যায় বিভিন্ন কোম্পানির, সেগুলো পাস্তুরায়নের মাধ্যমে তৈরি হওয়ায় প্রোবায়োটিকস মারা যায়। তাই এই দইগুলোতে অন্যান্য পুষ্টি উপাদান থাকলেও উপকারী ব্যাকটেরিয়াগুলোর উপস্থিতি নেই। মিষ্টির দোকানে যেসব দই পাওয়া যায়, সেসব দই খাওয়াই বেশি উপকারী। 

 

জেনে অবাক হবেন, দই খেলে এলার্জি প্রতিহত হয়। আমাদের শরীরের ইমিউন সিস্টেম দ্বারা তৈরি যেসব অ্যান্টিবডি আমাদের দেহে এলার্জি সৃষ্টির জন্য দায়ী, দইয়ের ভেতর থাকা উপকারী ব্যাকটেরিয়া এসব অ্যান্টিবডি তৈরি হতে দেয় না। দই টাইপ টু ডায়বেটিস রোগীদের জন্যও উপকার বয়ে আনে। দই খেলে অস্টিওপরোসিস এর লক্ষ্মণগুলো দূর হয়। সহজে অস্টিওপরোসিস হয় না কারণ দইয়ের ভেতর রয়েছে প্রচুর ভিটামিন, মিনারেলস, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, জিংক। সর্বোপরি বলা যায়, দই এর মতো পুষ্টিগুণ সম্পন্ন উপাদেয় খাবার আমাদের সুস্বাস্থ্যের জন্য অতীব জরুরি। তাই নিয়মিত দই খাওয়ার অভ্যাস করুন।