হাত-পা কেন ঘামে? অতিরিক্ত হাত-পা ঘামার কারণ কি?

 

হাত ও পা ঘামা বর্তমান সময়ে একটি মারাত্মক সমস্যা। অনেকেই হাতের তালু ও পা এর পাতার তলদেশ ঘামার এই রোগটিতে আক্রান্ত। হাত ও ও পা ঘামলে আমাদের নানারকম সমস্যায় পড়তে হয়। পা তালু ঘামলে আমাদের হাঁটতে কষ্ট হয়। পা পিছলে যায় জুতার ভেতর। মোজা ব্যবহার করলে মোজায় দুর্গন্ধ হয়। অনেক সময় পা এর ফাকে ফাকে ঘা হয়। হাত এর তালু ঘামার কারণে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে সাধারণ কার্যকলাপ বিঘ্নিত হয়। পরীক্ষার খাতায় হাত ঘামলে পরীক্ষা দেয়ার সময় খাতা ভিজে যায়। এছাড়া যে কোনো জিনিস হাত দিয়ে ধরলেও তা ভিজে যায়। কারও সাথে করমর্দন করা যায় না। হাত এর তালু ও পা এর পাতা সবসময় ভেজা ঘর্মাক্ত থাকলে অনেক সময় নানা রকম ব্যাকটেরিয়া ও ভাইরাস ঘটিত চর্মরোগ হয়। আরও হাজারও  সমস্যায় পড়তে হয় যেটি কেবল যারা এই রোগটিতে আক্রান্ত তারাই জানে। এই হাত এর তালু ও পা এর পাতা ঘামার রোগটি অত্যন্ত বিরক্তিকর। কিন্তু হাতের তালু ও পায়ের পাতা কেন ঘামে? 

 

হাতের তালু ও পা এর পাতা ঘামার এই রোগটির নাম হাইপারহাইড্রোসিস। হাতের তালু ও পা এর পাতা কেন ঘামে, হাইপারহাইড্রোসিস কেন হয়, কি নির্দিষ্ট কারণে এই সমস্যাটিতে মানুষ ভোগে তা এখনও বিজ্ঞানীরা শনাক্ত করতে পারে নি। কিন্তু কিছু কারণ তারা বলেছেন যার কারণে এই হাতের তালু ও পা এর পাতা ঘামের রোগটি মানুষের হয়ে থাকে। স্নায়ুবিক দুর্বলতা, হরমোনাল প্রভাব, অতিরিক্ত দুশ্চিন্তা, উদ্বেগ এসব কারণে হাত ও পা ঘামার এই সমস্যায় মানুষ ভোগে। 

 

যেহেতু হাইপারহাইড্রোসিস নামে এই  রোগটির নির্দিষ্ট কোনো কারণ বিজ্ঞানীরা এখন পর্যন্ত নির্ণয় করতে পারে নি, তাই এর চিকিৎসাও নির্দিষ্ট নয়। আর একটি ব্যাপার হলো এই রোগটি কখনও পুরোপুরি সেরে ওঠে না। ওষুধ সেবনের মাধ্যমে কমানো যায়। কিন্তু পুরোপুরি ভালো হয় না রোগটি। কিছু চিকিৎসার মধ্যে অন্যতম হলো হাতের তালু ও পা এর পাতায় নিয়মিত আ্যালুমিনিয়াম ক্লোরাইড এর লোশন দিয়ে মালিশ করা। এই আ্যালুমিনিয়াম ক্লোরাইড ব্যবহারের মাধ্যমে অনেকেই এই রোগটি থেকে মুক্তি পেয়েছেন। এছাড়াও হাতের তালু ও পায়ের পাতায় নিয়মিত ইলেকট্রনিক শক দেয়ার মাধ্যমেও এই রোগটি ভালো হয়। ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী হাইপারহাইড্রোসিস এর চিকিৎসা করা উচিত।