পাহাড়ের চূড়ায় বরফ জমে কেন?

আমাদের বাংলাদেশের যেহেতু বরফ পড়ে না তাই বাস্তবে বরফ না দেখে থাকলেও আমরা অনেক ছবি বা কোন মুভিতে দেখে থাকি পাহাড়ের উপর বরফ জমে আছে। একটু ভালো করে লক্ষ্য করলে একটি জিনিস লক্ষ্য করতে পারব। তা হল, পাহাড়ের চূড়ায় যত বরফ জমে থাকে পাহাড়ের পাদদেশে তত বরফ জমে না। অনেক ক্ষেত্রে। শুধুমাত্র পাহাড়ের উপরের দিকেই বরফ জমতে দেখতে পাওয়া যায়। কিন্তু নিচের কোন বরফ থাকেনা। তাই স্বাভাবিক ভাবেই আমাদের মাথায় প্রশ্ন আসতে পারে পাহাড়ের চূড়ায় বরফ জমে কেন? 

চলুন কারণটি ব্যাখ্যা করা যাক,

আমরা সবাই জানি যে বরফ জমা এবং না জমার প্রধান কারণ হচ্ছে তাপের তারতম্য। অর্থাৎ যেখানে তাপ কম থাকবে সেই পরিবেশ বরফ জমার জন্য আদর্শ। তাপমাত্রা বেড়ে গেলে বরফ গলে যায় তাই যেখানে তাপমাত্রা বেশি সেখানে বরফ অবশ্যই জমবে না। পাহাড়ের চূড়ায় বরফ জমে কেন

আমরা জানি তাপের প্রধান উৎস হচ্ছে সূর্য ।অর্থাৎ পৃথিবীর সব তাপই সূর্য থেকে এসে থাকে। সূর্যের তাপ সরাসরি বায়ু ভেদ করে ভূপৃষ্ঠে পতিত হয়। এবং ভূ-পৃষ্ঠের আশপাশের উপাদানগুলো সেটিকে নিজের ভেতরে ধারণ করে ভূ-পৃষ্ঠের চারপাশে উত্তপ্ত করে তুলে। অর্থাৎ চারপাশে গরম হয়ে যায়। এছাড়া আমরা আরেকটি বিষয় জানি। ভূপৃষ্ঠের উত্তাপে গরম বাতাস গুলো উপরে উঠে যায়। তাহলে তো উপরে পরিবেশ আরো গরম হওয়ার কথা। কিন্তু গরম হচ্ছে না কেন? এবং সূর্যের তাপ উপর থেকেই প্রথমে পাহাড়ের মাথায় পড়ে এবং পরবর্তীতে নিচের দিকে আসে। সেক্ষেত্রেও তাপ উপরের দিকে বেশি হওয়া কথা।কেন হয় না?

আর ও পড়ুনঃ কিভাবে পেঁয়াজ কাটলে চোখ থেকে কম পানি বের হয়?

এর প্রধান কারণ হচ্ছে গরম বাতাস যখন উপর দিকে উঠতে থাকে তখন সেটি ঠান্ডা হয়ে যায়। কারণ উপরের দিকে বায়ু চাপের পরিমাণ অনেক কম থাকে এবং অতিরিক্ত চাপ না থাকায় উতপ্ত বায়ু সহজে ঠান্ডা হতে পারে। তাই উপরের পরিবেশ হয়ে যায় ঠান্ডা। এছাড়াও সূর্যের আলো প্রথমে পাহাড়ের মাথায় পতিত হলেও পাহাড়ের চূড়ার আশেপাশে বায়ু ব্যতীত অন্য কোন উপাদান থাকে না। যার জন্য আশেপাশের পরিবেশের  তাপ ধারণ করার কোন প্রশ্নই আসে না। আর আমরা জানি বায়ু কোন প্রকার তাপ ধারণ করে না। তাই সার্বিক পরিবেশ মিলে উপরের পরিবেশটি হয়ে যায় বরফ জমার জন্য আদর্শ পরিবেশ। তাই পাহাড়ের পাদদেশে বরফ দেখতে না পারলেও পাহাড়ের মাথায় আমরা বরফ দেখতে পাই।