কিশোর বয়সে কোমল পানীয় পানের ক্ষতি

বর্তমান যুগের কিশোর কিশোরীদের মধ্যে বেড়েছে কোমল পানীয় পানের প্রবণতা। অনেকটা ঝোঁকের বশেই তারা ঝুঁকে পড়েছে কোমল পানীয় এর দিকে। ফাস্টফুড এর দিকেও তাদের মনোযোগ বেড়েছে। আর ফাস্টফুড খাওয়ার পর কোমল পানীয় যেন অবিচ্ছেদ্য অংশ। কিশোর বয়সেই শরীরের মূল বৃদ্ধি সাধিত হয়। কিন্তু কিশোর বয়সে এসব কোমল পানীয় পানের ফলে শরীরের মারাত্মক ক্ষতি হয় যা অদূর ভবিষ্যতে ভয়ানক পরিণতি এবং অকাল মৃত্যুর দিকে টেনে নিয়ে যায়। শিশু কিশোরদের জন্য এসব কোমল পানীয় পান কতটা ক্ষতির কারণ?? 

 

[ The trend of drinking soft drinks has increased among the teenagers of the present age. They tend to lean towards soft drinks. Their attention has also increased towards fast food. And soft drinks are an integral part after eating fast food. The main growth of the body is achieved during adolescence. But drinking these soft drinks during the teenage years causes serious damage to the body which leads to dire consequences and premature death in the near future. How much harm is caused by drinking these soft drinks for children and teenagers? ]

 

২৫০ মিলি কোমল পানীয়তে ৯-১০ চামচ চিনি থাকে। ফলে যারা অধিক পরিমাণে কোমল পানীয় পান করেন, তাদের ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি অনেক বেড়ে যায়। শিশু ডায়াবেটিস রোগীর সংখ্যা এখন অনেক বেড়ে গেছে। 

 

২৫০ মিলিতে এতটা চিনির পরিমাণ শুনে আপনার কাছে হয়তোবা অবিশ্বাস্য মনে হতে পারে। আসল বিষয় হচ্ছে, চিনির মিষ্টতা কম অনুভব করার জন্য কোমল পানীয়ে ফসফোরিক এসিড মেশানো হয়। এই এসিড হাড় মজবুতকারী ক্যালসিয়াম absorption এ বাধা প্রদান করে। ফলে হাড় হয় দুর্বল।

 

কোমল পানীয়ে ব্যবহৃত চিনি হচ্ছে ফ্রুক্টোজ। ফ্রুক্টোজের বিপাক হয় লিভারের মাধ্যমে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণে। বিপাক না হওয়া অতিরিক্ত ফ্রুক্টোজ ফ্যাটে পরিণত হয়ে লিভারে জমা হয়ে ফ্যাটি লিভার সৃষ্টি করে। ফ্যাটি লিভার থেকে লিভার সিরোসিস—এমন কি লিভারের ক্যান্সারও হতে পারে।

READ MORE:  যে খাবারগুলো আপনার যৌনশক্তি বৃদ্ধি করবে

 

কোমল পানীয়ে আরো থাকে কার্বোনিক এসিড। চিনির সাথে মিলে এটি আমাদের দাঁতের ক্ষতি করে।

 

একটা বিষয় খেয়াল করেছেন? কোমল পানীয়ের মাধ্যমে আপনি যে এতো ক্যালরি গ্রহণ করছেন, তাতে কিন্তু আপনার পেট ভরছে না। সাথে খাচ্ছেন ভারী খাবার বা ফাস্ট ফুড। অধিক মাত্রায় ক্যালরি গ্রহণ obesity বা স্থুলতার সৃষ্টি করে। 

 

কোমল পানীয় উচ্চ রক্তচাপ সৃষ্টি করে ও রক্তে কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়ায়।

 

গবেষণায় দেখা গেছে, যারা সপ্তাহে দুইদিন কোমল পানীয় পান করেন, তাদের pancreatic cancer হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে; যারা পান করেন না, তাদের তুলনায় এ ঝুঁকি ৮০% বেড়ে যায়।

 

এ ছাড়া কোমল পানীয়ে কৃত্তিম রঙ,  preservative দেওয়া হয় যা, ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়।

 

তাই কিশোর বয়সে এসব কোমল পানীয় পান করা থেকে বিরত থাকুন। ১৫ টাকায় একজন কিশোর যদি একটি Pepsi না কিনে একটি ডিম বা একটি কলা কিনে খায় তাহলে তা তার স্বাস্থ্যের জন্য অপরিহার্য উপকার সাধন করবে। আর মনে রাখতে হবে, সুস্বাস্থ্য ছাড়া জীবনে শান্তি নেই।